সদ্য সংবাদ :
বিশেষ সংবাদ

পায়রা-রামপালের চেয়ে কম দামে বিদ্যু দিচ্ছে আদানি

Published : Saturday, 20 May, 2023 at 10:45 AM
অরুণ কর্মকার:সরকার তথা বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি) আমদানি করা কয়লায় চালিত যে কেন্দ্রগুলো থেকে বিদ্যুৎ কিনছে তার মধ্যে সবচেয়ে কম দামে বিদ্যুৎ পাওয়া যাচ্ছে ভারতের আদানি গ্রুপের কেন্দ্রটি থেকে। গত এপ্রিলে মাসের কেন্দ্রভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যয়ের যে হিসাব বিপিডিবি প্রস্তুত করেছে সেখানে এই দামের বিষয়টি উল্লিখিত হয়েছে।

 
মোট ১৫২টি বিদ্যুৎকেন্দ্র এপ্রিল মাসে যে বিল (এনার্জি ও পরিবর্তনশীল পরিচালন ব্যয়, সংক্ষেপে ভিওএম) জমা দিয়েছে তার ভিত্তিতে বিপিডিবি উৎপাদন ব্যয়ের এই হিসাব প্রস্তুত করেছে। প্রতি মাসে একইভাবে বিদ্যুতের উৎপাদন ব্যয়ের হিসাব প্রস্তুত করা হয়।

এপ্রিল মাসের হিসাবে দেখা যায়, আমদানিকৃত কয়লাভিত্তিক কেন্দ্রগুলোর মধ্যে আদানির প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের দাম পড়েছে ১২ টাকা ৪২ পয়সা। পায়রার প্রতি ইউনিটের দাম পড়েছে ১২ টাকা ৮৯ পয়সা। রামপালের প্রতি ইউনিটের দাম পড়েছে ১৩ টাকা ২০ পয়সা এবং বরিশাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের দাম পড়েছে ১৩ টাকা ৪৮ পয়সা।

আদানি গ্রুপের একটি সূত্র জানায়, তাঁদের সরবরাহ করা বিদ্যুতের দাম পায়রা কিংবা রামপাল কেন্দ্রের কাছাকাছিই থাকবে। কখনো কিছুটা কম হবে। আবার কখনো দুই-এক পয়সা বেশিও হতে পারে। ভারতের ঝাড়খন্ডের গড্ডায়  স্থাপিত আদানির বিদ্যুৎকেন্দ্রের দুটি ইউনিট থেকে বাংলাদেশ এক হাজার ৪৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কিনবে। এরমধ্যে বর্তমানে প্রথম ইউনিট থেকে ৭৫০ মেগাওয়টের মত পাওয়া যাচ্ছে। দ্বিতীয় ইউনিটেও পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু হয়েছে।

দেশের কয়লা ব্যবহার করে বড়পুকুরিয়া বিদ্যুৎকেন্দ্রের তিনটি ইউনিট চালানা হয়। তার মধ্যে ২৭৫ মেগাওয়াট ক্ষমতার ৩ নম্বর ইউনিটে এপ্রিল মাসে প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ পড়েছে ৮ টাকা ৩৩ পয়সা। কেন্দ্রটির অন্য দুটি ইউনিটে প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ পড়েছে ১০ টাকা ৯৯ পয়সা।

আমদানি করা কয়লাভিত্তিক কেন্দ্রগুলোর মধ্যে যেমন সবচেয়ে কম দামে বিদ্যুৎ পাওয়া যাচ্ছে ভারতের বেসরকারি খাতের আদানি গ্রুপের কেন্দ্র থেকে তেমনি বর্তমানে বিপিডিবি যে ১৫২টি কেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ কিনছে এর মধ্যে একমাত্র কাপ্তাই জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র ছাড়া সবচেয়ে কম দামে বিদ্যুৎ পাওয়া যাচ্ছে ভারতের সরকারি খাত থেকে। বাংলাদেশ-ভারত বন্ধুত্বের স্মারক হিসেবে ভারত সরকার সে দেশের গ্রিড থেকে সর্বপ্রথম (এনভিভিএন প্রথম ফেইজ) যে ২৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ বাংলাদেশে সরবরাহ শুরু করেছিল সেটিই হচ্ছে এই সর্বনিম্ন দামের বিদ্যুৎ। এপ্রিল মাসে এর প্রতি ইউনিটের দাম পড়েছে ২ টাকা ৫৭ পয়সা। কাপ্তাই বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে এপ্রিলে প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ পাওয়া গেছে ২৭ পয়সা করে যদিও তার পরিমান নগন্য।

দুই দেশের সরকারের মধ্যে (জি টু জি) চুক্তির অধীনে বর্তমানে বিপিডিবি ভারতের সরকারি খাত থেকে মোট এক হাজার ১৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করছে। এরমধ্যে ওই ২৫০ মেগাওয়াট ছাড়া এনভিভিএন দ্বিতীয় ফেইজে’র রয়েছে ৩০০ মেগাওয়াট যার প্রতি ইউনিট এপ্রিলে পাওয়া গেছে ৩ টাকা ৫৬ পয়সা করে। সেমকর্ব ইন্ডিয়া লিমিটেডের প্রথম ফেইজের রয়েছে ২৫০ মেগাওয়াট যার প্রতি ইউনিট পাওয়া গেছে ৬ টাকা ২২ পয়সা করে। পিটিসি ইন্ডিয়া লিমিটেডের দ্বিতীয় ফেইজের আছে ২০০ মেগাওয়াট যার প্রতি ইউনিট পাওয়া গেছে ৬ টাকা ১৩ পয়সায়। আর ত্রিপুরা থেকে আসছে ১৬০ মেগাওয়াট, এপ্রিলে যার প্রতি ইউনিট পাওয়া গেছে ৭ টাকা ২০ পয়সা করে।

দেশের গ্যাসভিত্তিক কেন্দ্রগুলোর মধ্যে এপ্রিলে সবচেয়ে কম দামে বিদ্যুৎ পাওয়া গেছে ৪০০ মেগাওয়াট ক্ষমতার বিবিয়ানা-৩ কম্বাইন্ড সাইকেল কেন্দ্র থেকে, প্রতি ইউনিট ২ টাকা ৬৮ পয়সা করে। আর সর্বোচ্চ দাম পড়েছে চট্টগ্রাম (রাউজান) কেন্দ্রের বিদ্যুতে। প্রতি ইউনিট ৫ টাকা ৬১ পয়সা।


দেশে ডিজেল (এইচএসডি) চালিত কেন্দ্রগুলোর মধ্যে সবচেয়ে কম দাম পড়েছে খুলনা ২২৫ মেগাওয়াট কেন্দ্রে। প্রতি ইউনিট ২২ টাকা ৩৮ পয়সা।


উপরোক্ত হিসাব সবই সার্বক্ষণিকভাবে চালানো বিদ্যুৎকেন্দ্রের (বেইজ লোড প্লান্ট)। দেশে বর্তমানে এই শ্রেণির বিদ্যুৎকেন্দ্র ৪৮টি। এছাড়া সর্বোচ্চ চাহিদার সময় চালানো হয় (পিক লোড প্লান্ট) এমন বিদ্যুৎকেন্দ্র রয়েছে ১০৪টি। এই শেণিভুক্ত গ্যাসভিত্তিক কেন্দ্রগুলোর মধ্যে এপ্রিলে সবচেয়ে কম দামে বিদ্যুৎ দিয়েছে আশুগঞ্জ ৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্র। প্রতি ইউনিট ৩ টাকা ৪৩ পয়সা করে। আর সবচেয়ে বেশি দাম পড়েছে সিলেট ২০ মেগাওয়াট গ্যাস টারবাইন কেন্দ্রের বিদ্যুতে। প্রতি ইউনিট ৬ টাকা ৬৮ পয়সা করে।


পিক লোড শ্রেণির ফার্নেস তেল (এইচএফও) চালিত কেন্দ্রগুলোর মধ্যে সবচেয়ে কম দামে বিদ্যুৎ দিয়েছে আনোয়ারা ৩০০ মেগাওয়াট কেন্দ্র। প্রতি ইউনিট ১২ টাকা ৮০ পয়সা করে। আর সবচেয়ে বেশি দাম পড়েছে ফরিদপুর ৫০ মেগাওয়াট কেন্দ্রের বিদ্যুতে। প্রতি ইউনিট ২০ টাকা ৬০ পয়সা। 


এই শ্রেণি ডিজেল (এইচএসডি) চালিত দেন্দ্রগুলোর মধ্যে সবচেয়ে কম দাম পড়েছে ব্রাহ্মনগাঁও ১০০ মেগওয়ট কেন্দ্রের বিদ্যুতে। প্রতি ইউনিট ২৭ টাকা ৯৯ পয়সা করে। আর সবচেয়ে বেশি দাম পড়েছে রংপুর ২০ মেগাওয়াট জিটিপিপি কেন্দ্রের বিদ্যুতে। প্রতি ইউনিট ৫৬ টাকা ৮২ পয়সা।


প্রতি ইউনিট সর্বনিম্ন ১৩ টাকা ৯১ পয়সা করে সৌর বিদ্যুৎ পাওয়া গেছে তেতুলিয়ার মাঝিপাড়া ৮ মেগাওয়াট কেন্দ্র থেকে। এছাড়া সিরাজগঞ্জ সাড়ে ৬ মেগাওয়াট কেন্দ্র থেকে প্রতি ইউনিট ১৪ টাকা ২৪ পয়সা; মোংলা ১০০ মেগাওয়াট কেন্দ্র থেকে প্রতি ইউনিট ১৪ টাকা ৭৭ পয়সা; টেকনাফ ২০ মেগাওয়াট কেন্দ্র থেকে প্রতি ইউনিট ১৪ টাকা ৮৭ পয়সা; মানিকগঞ্জ ৩৫ মেগাওয়াট কেন্দ্র থেকে প্রতি ইউনিট ১৪ টাকা ৮৭ পয়সা; কাপ্তাই ৭ মোওয়াট কেন্দ্র থেকে প্রতি ইউনিট ১৫ টাকা ৫৬ পয়সা; গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ ২০০ মেগাওয়াট কেন্দ্র থেকে প্রতি ইউনিট ১৬ টাকা ০৫ পয়সা; লালমনিরহাট ৩০ মেগাওয়াট কেন্দ্র থেকে প্রতি ইউনিট ১৭ টাকা ১২ পয়সা; ময়মনসিংহের সূতাখালী ৫০ মেগাওয়াট কেন্দ্র থেকে প্রতি ইউনিট ১৮ টাকা ১৯ পয়সা এবং সরিষাবাড়ি ৩ মেগাওয়াট কেন্দ্র থেকে প্রতি ইউনিট ২০ টাকা ৩০ পয়সা (সর্বোচ্চ দাম) করে পাওয়া গেছে।




এবিনিউজ টুয়েন্টিফোর বিডিডটকম//এফ //








সম্পাদক: শাহীন চৌধুরী
উপদেষ্টা সম্পাদক: হেলেনা বিলকিস চৌধুরী, নির্বাহী সম্পাদক: বরুণ ভৌমিক নয়ন, ব্যবস্থাপনা সম্পাদক: সৈয়দ আফজাল বাকের, ঢাকা অফিস: ২/১ হুমায়ুন রোড (কলেজ গেট) মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭ ফোন: ৮৮-০২-৪৮১১৯৪৯৫, হটলাইন: ০১৭১১-৫৮৩৬২৩, ০১৭১৭-০৯৮৪২৮, চট্টগ্রাম অফিস- আবাসিক সম্পাদক: জাহিদুল করিম কচি, নাসিমন ভবন (দ্বিতীয় তলা) ১২১, নূর আহমেদ রোড, চট্টগ্রাম ফোন: ০৩১-২৫৫৭৫৪২ হটলাইন: ০১৭১১-৩০৭১৭১, E-mail : abnews13@gmail.com, Web : www.abnews24bd.com, Developed by i2soft Technology Ltd.
Close